বুধবার ২০ অক্টোবর ২০২১ || কার্তিক ৫ ১৪২৮ || ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

Logo
Logo

লকডাউনের আগে বাড়িফেরা মানুষের উপচেপড়া ভিড়

নিজস্ব প্রতিবেদক

আপডেট: 12:21 PM, সোমবার, ১২ এপ্রিল, ২০২১

১১

লকডাউনের আগে বাড়িফেরা মানুষের উপচেপড়া ভিড়

করোনা মহামারি নিয়ন্ত্রণে সরকারের কঠোর নির্দেশনার পর ১৪ এপ্রিল থেকে কঠোর লকডাউনের ঘোষণা এসেছে। সরকারের এ ঘোষণার পর ঘরমুখী মানুষের ভিড় বেড়েছে গাবতলীতে। ঢাকা সিটির মধ্যে বিভিন্ন পরিবহন চললেও দূরপাল্লার পরিবহন এখনও চলাচল শুরু হয়নি। যার ফলে ঘরমুখী মানুষ গাবতলী পর্যন্ত এসে প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেলে অতিরিক্ত ভাড়ায় বাড়ির পথে ছুটছেন।

সোমবার (১২ এপ্রিল) রাজধানীর গাবতলী বাস টার্মিনাল ফাঁকা দেখা গেলেও গাবতলী শেষ সীমানা পর্যন্ত বাড়িফেরা মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

মো. শহিদ নামের একজন বলেন, কাজকাম না থাকায় বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। কোনো পরিবহন চলছে না। তাই প্রাইভেটকারে যাওয়ার কথা ভাবছি। এখান থেকে পাটুরিয়া ঘাটে যাব প্রাইভেটকারে। তারপর নদী পার হয়ে গাড়িতে ভেঙে ভেঙে যাব। সরাসরি গাড়ি পেলে বাড়িতে যাওয়াটা সহজ হতো। রওনা যেহেতু হয়েছি, সেহেতু একভাবে চলে যাব আশা করছি।

রতন নামের আরেকজন বলেন, কাজ বন্ধ। তাই বাড়ি চলে যাচ্ছি। ঢাকাতে থাকলেই খরচ হবে, যেটা বহন করার মতন পরিস্থিতি আমার নেই। বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সঙ্গে কয়েকদিন কাটালে মনটাও ভালো লাগবে। লকডাউন শেষ হলে আবার ঢাকাতে ফিরব। তবে সরাসরি গাড়ি চলাচল না করায়, ভেঙে ভেঙে যেতে হবে।

হৃদয় নামের এক ছাত্র বলেন, আমি সিরাজগঞ্জে নিজের বাড়িতে যাব। গাবতলী এসে ভাবছি কীভাবে যাব। কারণ, পরিবহনে যেতে গাবতলী থেকে জনপ্রতি খরচ হয় ২৫০ টাকা। অথচ আজ সেই ভাড়া মোটরসাইকেলে ৫ হাজার আর শেয়ারের প্রাইভেটকারে ১ হাজার ৫০০ টাকা চাওয়া হচ্ছে। এখন ভাবছি বাড়ি যাব নাকি বাসায় ফিরে যাব।

এর আগে করোনা সংক্রমণরোধে সরকার ঘোষিত ১৮ দফা বাস্তবায়নে গত ৫ এপ্রিল থেকে রাজধানীসহ সারাদেশে লকডাউন শুরু হয়। নির্দেশনা অনুসারে জরুরি পণ্যবাহী পরিবহন ছাড়া রাস্তাঘাটে গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হওয়ারও নির্দেশনা রয়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিষেধাজ্ঞার দ্বিতীয় দিন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঘোষণা দেন, দেশের বিভিন্ন সিটি করপোরেশন এলাকায় ৬ এপ্রিল থেকে সকাল সন্ধ্যা গণপরিবহন চলবে। তবে আন্তঃজেলা বাস চলাচল বন্ধ থাকবে।

এদিকে, করোনা সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত এক সপ্তাহের কঠোর নিষেধাজ্ঞা ১১ এপ্রিল শেষ হলেও মেয়াদ বাড়িয়ে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়েছে। এর আগে ওবায়দুল কাদের বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের ভিত্তিতে শেখ হাসিনা সরকার সর্বাত্মক প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় সরকার লকডাউন ঘোষণা করে। ১৪ এপ্রিল থেকে সর্বাত্মক লকডাউন হবে। এ সময় বৃহত্তর স্বার্থে জরুরি সেবা ছাড়া সবাইকে ঘরে অবস্থান করতে হবে। প্রয়োজনীয় নির্দেশনাসহ সরকার সময়মতো প্রজ্ঞাপন জারি করবে বলেও জানান মন্ত্রী।

ফেসবুকে অমাদের ফলো করুন